ঢাকা ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বাগেরহাটে সাংবাদিকের শাশুড়ির মৃত্যু বিভিন্ন মহলের শোক নড়াইলের বিভিন্নস্থানে বাৎসরিক মতুয়া মহোৎসব অনুষ্ঠিত শরণখোলায় গলায় ওড়না পেচিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর আত্মহত্যা ৭ কোটির স্ক্র্যাপ ১ কোটিতে, ৬ কোটি টাকার ঘাপলা সুবর্ণচরে পাওয়ার টিলার চাপায় প্রাণ গেলো স্কুল শিক্ষার্থীর বর্ণ সংঘের উদ্যোগে মেধা বৃত্তি পরীক্ষা’২৪ সম্পন্ন বাকেরগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে তিন যুবককে কুপিয়ে আহত মতিঝিল থানার শ্রেষ্ঠ যুবলীগ নেতা ৯ নং ওয়ার্ড সভাপতি হাসান উদ্দিন জামাল হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মোরেলগঞ্জের পোলেরহাট বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, ১৩ দোকান পুড়ে ছাই
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুষ নেওয়ার একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ায়

চকরিয়ার সমাজসেবা কর্মকর্তা ও অফিস সহকারী বরখাস্ত

  • আপডেট সময় : ১০:৩০:৫৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪
  • ২০৪০ বার পড়া হয়েছে

কপিল উদ্দিন জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মমতাজ বেগমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. খায়রুল আলম শেখ ও সমাজসেবা অধিদফতরের যুগ্ম সচিব (পরিচালক প্রশাসন ও অর্থ) সৈয়দ মো. নুরুল বাছির স্বাক্ষরিত আলাদা প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুষ নেওয়ার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। এরপর সারা দেশে তোলপাড় শুরু হয়। তাছাড়া দেশের সব গণমাধ্যম গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করার পর আমজাদ হোসেন ও মমতাজ বেগমের ঘুষ লেনদেন নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

প্রজ্ঞাপন থেকে জানা গেছে, চকরিয়া উপজেলার হারবাং মধ্যম পহরচাঁদা এতিমখানার শিশুদের জন্য ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া হয় এক লাখ ৯২ হাজার টাকা। এ টাকা পেতে উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. আমজাদ হোসেন ও অফিস সহকারী-কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মমতাজ বেগম এতিমখানার সভাপতি রফিকুল ইসলামের কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা ঘুষ চান। তিন দফা বৈঠক করার পর মমতাজ বেগমকে নগদ ৪০ হাজার টাকা ঘুষ দেওয়া হয়। ভিক্ষুকদের সেলাই মেশিন বিতরণের অফিস খরচের জন্য পাঁচ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়।

এ ছাড়া বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, শিক্ষা উপবৃত্তি ও প্রতিবন্ধী ভাতা বই পেতে উপকারভোগীর কাছ থেকে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা ঘুষ আদায় করতেন আমজাদ হোসেন ও মমতাজ বেগম।

দুই কর্মকর্তার সাময়িক বরখাস্তের খবর জানতে চাইলে ভুক্তভোগী এতিমখানার সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এতিমদের টাকার ওপর যারা ভাগ বসায়, তারা কি ভালো মানুষ। সমাজসেবা কার্যালয়ের সব গরিব লোকজনই যায়, কিন্তু তাদের চুষে খাচ্ছে এ রকম কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী। সংশ্লিষ্ট দফতর দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ায় আমি খুশি।’

বরখাস্তের বিষয়ে জানতে চকরিয়া উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. আমজাদ হোসেন ও অফিস সহকারী-কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মমতাজ বেগমের মোবাইল নম্বরে কল দিলে বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে কক্সবাজার জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক হাসান মাসুদকে কল করা হলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

বাগেরহাটে সাংবাদিকের শাশুড়ির মৃত্যু বিভিন্ন মহলের শোক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুষ নেওয়ার একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ায়

চকরিয়ার সমাজসেবা কর্মকর্তা ও অফিস সহকারী বরখাস্ত

আপডেট সময় : ১০:৩০:৫৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪

কপিল উদ্দিন জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মমতাজ বেগমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. খায়রুল আলম শেখ ও সমাজসেবা অধিদফতরের যুগ্ম সচিব (পরিচালক প্রশাসন ও অর্থ) সৈয়দ মো. নুরুল বাছির স্বাক্ষরিত আলাদা প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘুষ নেওয়ার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। এরপর সারা দেশে তোলপাড় শুরু হয়। তাছাড়া দেশের সব গণমাধ্যম গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করার পর আমজাদ হোসেন ও মমতাজ বেগমের ঘুষ লেনদেন নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

প্রজ্ঞাপন থেকে জানা গেছে, চকরিয়া উপজেলার হারবাং মধ্যম পহরচাঁদা এতিমখানার শিশুদের জন্য ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া হয় এক লাখ ৯২ হাজার টাকা। এ টাকা পেতে উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. আমজাদ হোসেন ও অফিস সহকারী-কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মমতাজ বেগম এতিমখানার সভাপতি রফিকুল ইসলামের কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা ঘুষ চান। তিন দফা বৈঠক করার পর মমতাজ বেগমকে নগদ ৪০ হাজার টাকা ঘুষ দেওয়া হয়। ভিক্ষুকদের সেলাই মেশিন বিতরণের অফিস খরচের জন্য পাঁচ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়।

এ ছাড়া বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, শিক্ষা উপবৃত্তি ও প্রতিবন্ধী ভাতা বই পেতে উপকারভোগীর কাছ থেকে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা ঘুষ আদায় করতেন আমজাদ হোসেন ও মমতাজ বেগম।

দুই কর্মকর্তার সাময়িক বরখাস্তের খবর জানতে চাইলে ভুক্তভোগী এতিমখানার সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এতিমদের টাকার ওপর যারা ভাগ বসায়, তারা কি ভালো মানুষ। সমাজসেবা কার্যালয়ের সব গরিব লোকজনই যায়, কিন্তু তাদের চুষে খাচ্ছে এ রকম কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী। সংশ্লিষ্ট দফতর দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ায় আমি খুশি।’

বরখাস্তের বিষয়ে জানতে চকরিয়া উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. আমজাদ হোসেন ও অফিস সহকারী-কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মমতাজ বেগমের মোবাইল নম্বরে কল দিলে বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে কক্সবাজার জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক হাসান মাসুদকে কল করা হলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।