ঢাকা ০১:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
একযুগ পর এসআই পরেশ কারবারি হত্যা মামলার পলাতক আসামী গ্রেপ্তার বাকেরগঞ্জে চেয়ারম্যান হানিফ তালুকদার কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজ না করেই প্রকল্পের টাকা উত্তোলন প্রকাশ হলো সুজন-তুলসীর স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র “কলেজ গার্ল” গাজীপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে সাংবাদিকের গাছপালা কেটে ক্ষতিসাধন মধুপুরে প্রাইভেটকার ও মাহিন্দ্রার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২ আহত ৮ শিল্পী সমিতির সদস্যদের জন্য ১০ লাখ টাকা অনুদান দিলেন ডিপজল জুড়ী নদীর বাঁধে ভাঙন ভাঙনকবলিত স্থান পরিদর্শনে যান উপজেলা চেয়ারম্যান কিশোর রায় চৌধুরী মনি বিএনপি নেতার বাড়িতে আওয়ামী লীগ নেতাদের গোপন বৈঠক, গৌরনদীতে ব্যাপক তোলপাড় ! দেশীয় তৈরী বন্ধুকসহ একাদিক মামলার আসামী নিজাম উদ্দিন’কে গ্রেফতার করেছে দাগনভূঁঞা থানা পুলিশ গরিব ও অসহায় মানুষদের লাখপতি করাই যার নেশা !

চাঞ্চল্যকর ক্লুলেস ডাকাতি মামলার রহস্য উদঘাটনে গ্রেফতার ৪

  • মাসুদ রানা
  • আপডেট সময় : ০১:০১:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩
  • ২৮৪২ বার পড়া হয়েছে

গত ১২ মে ২০২৩ ইং ভোর রাত অনুমান ০৩.৪৫ ঘটিকায় স্পেশাল ব্রাঞ্চ, মালিবাগ, ঢাকায় কর্মরত নারী কনস্টেবল/৭৭০ নার্গিস আক্তার (৩৩) রিক্সা যোগে ভিভিআইপি ডিউটির উদ্দেশ্যে অফিস যাওয়ার পথে পল্টন মডেল থানাধীন রাজারবাগ বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের সামনের মোড়ে ভোর রাত অনুমান ০৪.ঘটিকায় পৌছামাত্র পিছন হতে আসা একটি হলুদ ও নীল রংয়ের পিকআপ গাড়ী তার রিক্সাকে চাপ দেয় এবং উক্ত পিকআপ গাড়ীর পিছন হতে ২(দুই) জন অজ্ঞাতনামা লোক নেমে একজন তার হাত ধরে এবং অপর জন গলায় চাকু ধরে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে তার গলায় থাকা স্বর্ণের একটি চেইন, ওজন অনুমান ১০ আনা, মূল্য অনুমান ৬০,০০০/- (ষাট হাজার) টাকা এবং হাতে থাকা ছোট ভ্যানেটি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

উক্ত ব্যাগের ভিতরে নগদ ৫,০০০/-টাকা, একটি শাওমী নোট ৮ মোবাইল ফোন, মূল্য অনুমান ৪৫,০০০/-টাকা, একটি বাটন স্যামসাং মোবাইল ফোন, মূল্য অনুমান ৩,০০০/-টাকা, এসবির আইডি কার্ড জোর পূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে পিকআপ গাড়ীটি দ্রুত ডান দিকে মোড় নিয়ে শাহজাহানপুরের দিকে চলে যায়। বাদীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পল্টন মডেল থানা মামলা রুজু করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় মতিঝিল বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হায়াতুল ইসলাম খান এর দিক নির্দেশনায় অতিঃ উপ-পুলিশ কমিশনার (মতিঝিল জোন) মোঃ রওশানুল হক সৈকত এর দুরদর্শি নেতৃত্বে পল্টন মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ সালাউদ্দিন মিয়ার সহযোগিতায় পল্টন মডেল থানার একটি বিশেষ টিম ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে গত ১৫ মে -২৩ ইং রাতে মহাখালী হতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। মহাখালী হতে ঘটনায় সাথে জড়িত থাকা ডাকাত চক্রের চারসদস্যকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ হতে ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত দেশীয় বিভিন্ন অস্ত্র-শস্ত্রসহ, পিকআপ ও লুন্ঠিত টাকা এবং ৪ টি স্মার্ট মোবাইল, ৩ টি বাটন মোবাইল উদ্ধারসহ ঘটনার সাথে সরাসরি জড়িত থাকা ডাকাত দলের ৪(চার) সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।গ্রেফতারকৃতরা হলেন সোহেল (৩০) আক্তার সোহরাব (৩২) আবির হোসেন রাসেল (২৫)মোঃ রনির (২৮)।

দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ মতিঝিল বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হায়াতুল ইসলাম খান বলেন গ্রেফতারকৃত ডাকাত দলের সদস্যরা পিকআপ গাড়িটি গত ৫-৬ দিন পূর্বে ছিনতাই করে নিজেদের দখলে নিয়েছে। উক্ত ছিনতাইকৃত পিকআপ ভ্যান গাড়ি নিয়ে তারা গত ৫/৬ দিন ধরে রাতের বেলায় চলাচলরত পথচারী/রিক্সার যাত্রীদের সুবিধাজনক স্থানে গতিরোধ করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ডাকাতি করে আসছে। তারা আরও জানায় যে, গত ১২ মে ২০২৩খ্রিঃ তারিখ মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় একটি এবং গত ১৩ মে ২০২৩খ্রিঃ তারিখ তেজগাঁও ও বনানী থানা এলাকায় অনুরুপ দুইটি ডাকাতির ঘটনা সংঘটিত করেছে।

গ্রেফতারকৃত সোহেলের বিরুদ্ধে ২ টি তারমধ্য ডাকাতি ১ টি দস্যুতা-১টি।আক্তার সোহরাবের বিরুদ্ধে ৬ টি মামলা(তারমধ্যেড ডাকাতি ৪ টি, মাদকসহ অন্যান্য-২ টি। আমির হোসেন রাসেলের বিরুদ্ধে ৫ টি মামলা (তন্মধ্যে ডাকাতি ১ টি দস্যুতা- ১ টি মাদকসহ অন্যান্য-৩ টি।মোঃ রনির বিরুদ্ধে ৮ টি মামলা (তন্মধ্যে ডাকাতি ১ টি দস্যুতা-২ টি মাদকসহ অন্যান্য-৫ টি মামলা রয়েছে।ধৃত আসামীদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

একযুগ পর এসআই পরেশ কারবারি হত্যা মামলার পলাতক আসামী গ্রেপ্তার

চাঞ্চল্যকর ক্লুলেস ডাকাতি মামলার রহস্য উদঘাটনে গ্রেফতার ৪

আপডেট সময় : ০১:০১:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩

গত ১২ মে ২০২৩ ইং ভোর রাত অনুমান ০৩.৪৫ ঘটিকায় স্পেশাল ব্রাঞ্চ, মালিবাগ, ঢাকায় কর্মরত নারী কনস্টেবল/৭৭০ নার্গিস আক্তার (৩৩) রিক্সা যোগে ভিভিআইপি ডিউটির উদ্দেশ্যে অফিস যাওয়ার পথে পল্টন মডেল থানাধীন রাজারবাগ বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের সামনের মোড়ে ভোর রাত অনুমান ০৪.ঘটিকায় পৌছামাত্র পিছন হতে আসা একটি হলুদ ও নীল রংয়ের পিকআপ গাড়ী তার রিক্সাকে চাপ দেয় এবং উক্ত পিকআপ গাড়ীর পিছন হতে ২(দুই) জন অজ্ঞাতনামা লোক নেমে একজন তার হাত ধরে এবং অপর জন গলায় চাকু ধরে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে তার গলায় থাকা স্বর্ণের একটি চেইন, ওজন অনুমান ১০ আনা, মূল্য অনুমান ৬০,০০০/- (ষাট হাজার) টাকা এবং হাতে থাকা ছোট ভ্যানেটি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

উক্ত ব্যাগের ভিতরে নগদ ৫,০০০/-টাকা, একটি শাওমী নোট ৮ মোবাইল ফোন, মূল্য অনুমান ৪৫,০০০/-টাকা, একটি বাটন স্যামসাং মোবাইল ফোন, মূল্য অনুমান ৩,০০০/-টাকা, এসবির আইডি কার্ড জোর পূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে পিকআপ গাড়ীটি দ্রুত ডান দিকে মোড় নিয়ে শাহজাহানপুরের দিকে চলে যায়। বাদীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পল্টন মডেল থানা মামলা রুজু করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় মতিঝিল বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হায়াতুল ইসলাম খান এর দিক নির্দেশনায় অতিঃ উপ-পুলিশ কমিশনার (মতিঝিল জোন) মোঃ রওশানুল হক সৈকত এর দুরদর্শি নেতৃত্বে পল্টন মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ সালাউদ্দিন মিয়ার সহযোগিতায় পল্টন মডেল থানার একটি বিশেষ টিম ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে গত ১৫ মে -২৩ ইং রাতে মহাখালী হতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। মহাখালী হতে ঘটনায় সাথে জড়িত থাকা ডাকাত চক্রের চারসদস্যকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ হতে ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত দেশীয় বিভিন্ন অস্ত্র-শস্ত্রসহ, পিকআপ ও লুন্ঠিত টাকা এবং ৪ টি স্মার্ট মোবাইল, ৩ টি বাটন মোবাইল উদ্ধারসহ ঘটনার সাথে সরাসরি জড়িত থাকা ডাকাত দলের ৪(চার) সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।গ্রেফতারকৃতরা হলেন সোহেল (৩০) আক্তার সোহরাব (৩২) আবির হোসেন রাসেল (২৫)মোঃ রনির (২৮)।

দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ মতিঝিল বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার হায়াতুল ইসলাম খান বলেন গ্রেফতারকৃত ডাকাত দলের সদস্যরা পিকআপ গাড়িটি গত ৫-৬ দিন পূর্বে ছিনতাই করে নিজেদের দখলে নিয়েছে। উক্ত ছিনতাইকৃত পিকআপ ভ্যান গাড়ি নিয়ে তারা গত ৫/৬ দিন ধরে রাতের বেলায় চলাচলরত পথচারী/রিক্সার যাত্রীদের সুবিধাজনক স্থানে গতিরোধ করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ডাকাতি করে আসছে। তারা আরও জানায় যে, গত ১২ মে ২০২৩খ্রিঃ তারিখ মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় একটি এবং গত ১৩ মে ২০২৩খ্রিঃ তারিখ তেজগাঁও ও বনানী থানা এলাকায় অনুরুপ দুইটি ডাকাতির ঘটনা সংঘটিত করেছে।

গ্রেফতারকৃত সোহেলের বিরুদ্ধে ২ টি তারমধ্য ডাকাতি ১ টি দস্যুতা-১টি।আক্তার সোহরাবের বিরুদ্ধে ৬ টি মামলা(তারমধ্যেড ডাকাতি ৪ টি, মাদকসহ অন্যান্য-২ টি। আমির হোসেন রাসেলের বিরুদ্ধে ৫ টি মামলা (তন্মধ্যে ডাকাতি ১ টি দস্যুতা- ১ টি মাদকসহ অন্যান্য-৩ টি।মোঃ রনির বিরুদ্ধে ৮ টি মামলা (তন্মধ্যে ডাকাতি ১ টি দস্যুতা-২ টি মাদকসহ অন্যান্য-৫ টি মামলা রয়েছে।ধৃত আসামীদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।