ঢাকা ০৬:১১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বর্ণাঢ্য আয়োজনে কলসকাঠী তে ঈদ পুনর্মিলনী উদযাপিত দেশ ছেড়েছেন সাবেক ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া! ঈদের জামাতের জননিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে প্রতি মসজিদ এবং ঈদগাহ কমিটির সাথে কথা বলে অতিরিক্ত ভলেন্টিয়ার রেখেছেন বাড্ডা থানা পুলিশ বিপুল পরিমান বিদেশী মদসহ এক মাদককারবারী’কে গ্রেফতার করেছে দাগনভূঁঞা থানা পুলিশ গোসাইরহাটে বিপুল পরিমাণ নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ সাংবাদিক নাদিমের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল সাংবাদিক অপহরণ মামলার মূল হোতা কাউছার মুন্সি সহ দুইজন আটক; আলামত উদ্ধার পবিত্র ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিশ্বাস মুতিউর বাদশা! জাতীয় দৈনিক আজকালের কন্ঠে  রিপোর্টার হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাংবাদিক মোঃ- আতাউল্লাহ রাফি মতিঝিল থানা সহ দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জননন্দিত যুবলীগ নেতা হাসান উদ্দিন জামাল!

চেইন অব কমাণ্ড ভেস্তে পড়েছে ওষুধ প্রশাসনের

  • মাসুদ রানা
  • আপডেট সময় : ০৭:৩৮:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৩
  • ২২২৫ বার পড়া হয়েছে

অযোগ্য অদক্ষ্য ও অদুরদর্শি নেতৃত্বের কারণে চেইন অব কমাণ্ড ভেঙ্গে পড়েছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের । অভিযোগ রয়েছে, যে কর্মকর্তা যেসব পদের যোগ্য নয় তাকে দিয়ে ওই পদের কাজ করানোর ফলে বিশৃ্খংলা যেন ছাড়ছে না ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে। এমনকি দায়িত্ব প্রাপ্ত পরিচালকরা মানছেন না মহাপরিচালকের কথা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার বিকেলে ওষুধ প্রশাসন ভবনের অডিটরিয়ামে, স্বস্থ্য সচিবের নির্দেশে স্মার্ট বাংলাদেশের স্মার্ট ওসুধ প্রশাসন গড়ার লক্ষ্যে আলোচনা সভা ডাকেন ওষুধ প্রশাসনের বর্তমান মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফ। এছাড়া স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবের যুক্তি অনুযায়ী ড্রাগ লাইসেন্স এর ফি বৃদ্ধি, নতুন ওষুধ অনুমোদনের ফি বৃদ্ধি সহ প্রতিষ্ঠানটিকে যুগোপযোগী করার বিষয় আলোচনা হয়। আলোচনা চলাকালিন সময় মন্ত্রনালয়ের কল আসলে অধিদফতরের মহাপরিচালক আলোচনা চালিয়ে যাওয়া কথা বলে আলোচনা সভার দায়িত্ব পরিচালক আইয়ুব হোসেন কে দিয়ে তিনি মন্ত্রণালয়ে চলে যান।

পরে এই আলোচনা সভায় পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমান একটি প্রস্তাব পেশ করেন উক্ত প্রস্তাব টি কোনরূপ বিবেচনা না করেই মো. সালাউদ্দিন ওই প্রস্তাব টির বিশয়ে বিরুপ মন্তব্য করায় দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয় এবং একপর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি ঘটন করা হয়। ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালককে আহবায়ক করে কমিটি করা হয়। এতে অন্য সদস্যরা হলেন, পরিচালক মো, আইয়ুব হোসেন ,পরিচালক মো: মোজাম্মেল হোসেন এবং উপ-পরিচালক মো.সামসু উদ্দিন।
ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের স্টক হোল্ডার রা বলছেন, ওষুধ প্রশাসনে পরিচালকরা সবাই প্রথম শ্রেনীর কর্মকর্তা তাহলে কিভাবে হাতাহাতির মতো ঘটনা ঘটে। তারা মনে করছেন অযোগ্য কর্মকর্তাদের প্রশাসনিক দায়িত্ব দেয়ার কারণে এই অপ্রিতিকর ঘটনা ঘটেছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

বর্ণাঢ্য আয়োজনে কলসকাঠী তে ঈদ পুনর্মিলনী উদযাপিত

চেইন অব কমাণ্ড ভেস্তে পড়েছে ওষুধ প্রশাসনের

আপডেট সময় : ০৭:৩৮:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৩

অযোগ্য অদক্ষ্য ও অদুরদর্শি নেতৃত্বের কারণে চেইন অব কমাণ্ড ভেঙ্গে পড়েছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের । অভিযোগ রয়েছে, যে কর্মকর্তা যেসব পদের যোগ্য নয় তাকে দিয়ে ওই পদের কাজ করানোর ফলে বিশৃ্খংলা যেন ছাড়ছে না ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে। এমনকি দায়িত্ব প্রাপ্ত পরিচালকরা মানছেন না মহাপরিচালকের কথা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার বিকেলে ওষুধ প্রশাসন ভবনের অডিটরিয়ামে, স্বস্থ্য সচিবের নির্দেশে স্মার্ট বাংলাদেশের স্মার্ট ওসুধ প্রশাসন গড়ার লক্ষ্যে আলোচনা সভা ডাকেন ওষুধ প্রশাসনের বর্তমান মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফ। এছাড়া স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবের যুক্তি অনুযায়ী ড্রাগ লাইসেন্স এর ফি বৃদ্ধি, নতুন ওষুধ অনুমোদনের ফি বৃদ্ধি সহ প্রতিষ্ঠানটিকে যুগোপযোগী করার বিষয় আলোচনা হয়। আলোচনা চলাকালিন সময় মন্ত্রনালয়ের কল আসলে অধিদফতরের মহাপরিচালক আলোচনা চালিয়ে যাওয়া কথা বলে আলোচনা সভার দায়িত্ব পরিচালক আইয়ুব হোসেন কে দিয়ে তিনি মন্ত্রণালয়ে চলে যান।

পরে এই আলোচনা সভায় পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমান একটি প্রস্তাব পেশ করেন উক্ত প্রস্তাব টি কোনরূপ বিবেচনা না করেই মো. সালাউদ্দিন ওই প্রস্তাব টির বিশয়ে বিরুপ মন্তব্য করায় দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয় এবং একপর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি ঘটন করা হয়। ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালককে আহবায়ক করে কমিটি করা হয়। এতে অন্য সদস্যরা হলেন, পরিচালক মো, আইয়ুব হোসেন ,পরিচালক মো: মোজাম্মেল হোসেন এবং উপ-পরিচালক মো.সামসু উদ্দিন।
ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের স্টক হোল্ডার রা বলছেন, ওষুধ প্রশাসনে পরিচালকরা সবাই প্রথম শ্রেনীর কর্মকর্তা তাহলে কিভাবে হাতাহাতির মতো ঘটনা ঘটে। তারা মনে করছেন অযোগ্য কর্মকর্তাদের প্রশাসনিক দায়িত্ব দেয়ার কারণে এই অপ্রিতিকর ঘটনা ঘটেছে।