ঢাকা ১২:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
৮ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের ভিডিও নিয়ে চিন্তিত সীমা সরকার দেশজুড়ে তোলপাড়! বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক সোসাইটি জেলা কমিটি অনুমোদন সভাপতি কামরুজ্জামান সম্পাদক বাদশা এটিএন বাংলার চায়ের চুমুকে সংগঠক ও বিনোদন সাংবাদিক আবুল হোসেন মজুমদার ৭ ঘণ্টা অন্ধকারে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের প্রধান কার্যালয় টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা প্রাইভেট পড়ানোর নামে স্কুল ছাত্রদের সাথে বিকৃত যৌনাচার শিক্ষক’কে গ্রেফতার করেছে: সিআইডি সীতাকুণ্ডে হজ্ব প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন সীতাকুণ্ডে ট্রাকে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, চালক নিহত চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে বাকেরগঞ্জে দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠিত

জয় বাংলা কনসার্ট মাতাচ্ছেন সর্বমোট ৯টি দেশীয় ব্র্যান্ড দল

  • আপডেট সময় : ০৬:০১:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ মার্চ ২০২৪
  • ২০৩০ বার পড়া হয়েছে

জাহাঙ্গীর আলম চট্টগ্রাম:- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ স্মরণে চট্টগ্রামে চলছে জয় বাংলা কনসার্ট। আর বন্দর নগরীর দর্শক শ্রোতাদের ভিন্ন স্বাদের সুর উপহার দিতে মঞ্চে জনপ্রিয় ব্যান্ড মেঘদল। তাদের জনপ্রিয় গান ‘এ হাওয়া’র সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে গাইলেন হাজার হাজার তরুণ।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে বেলা তিনটায় এই কনসার্ট শুরু হয়। কনসার্টে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গান ‘মুক্তির মন্দির সোপান তলে’ গেয়ে শোনায় ব্যান্ডদলটি।

এবারের জয় বাংলা কনসার্ট মাতাচ্ছে সর্বমোট ৯টি দেশীয় ব্র্যান্ড দল। এগুলো হলো- অ্যাভোয়েড রাফা, নেমেসিস, চিরকুট, মেঘদল, লালন, তীরন্দাজ (চট্টগ্রামের ব্যান্ড দল), কার্নিভাল, আর্টসেল এবং ক্রিপটিক ফেইট।

বেলা সাড়ে ৪টার দিকে মঞ্চে উঠে ভিন্ন ধারার সুরের গান পরিবেশন করে মেঘদল। ৩০ মিনিট ধরে তাদের একেকটি গানে কখনও উচ্ছ্বাস, কখনও বেদনার সাগরে ভাসেন দর্শক শ্রোতারা।

মেঘদলের পরে বেলা ৫টা ২০ মিনিটে মঞ্চে উঠবে ব্যান্ড দল অ্যাভোয়েড রাফা। ৩০ মিনিটের পরিবেশনার কথা রয়েছে তাদের।

এরপর একে একে মঞ্চ মাতাবে লালন, ক্রিপটিক ফেইট, নেমেসিস এবং চিরকুট। আর সবশেষ মঞ্চে উঠবে ব্যান্ড আর্টসেল। প্রতিটি ব্যান্ডই প্রায় ৪৫ মিনিট করে গান পরিবেশনা করবে।

এর আগে, বেলা ৩টার দিকে শুরুতেই মঞ্চে ওঠে চট্টগ্রামের ব্যান্ড দল তীরন্দাজ। প্রায় ২৫ মিনিট ধরে তারা জনপ্রিয় একেকটি গান পরিবেশন করতে থাকে। তাদের পরে বেলা ৩:৪০ মিনিটের দিকে মঞ্চে ওঠে ব্যান্ড কার্নিভাল। প্রায় ৩০ মিনিট ধরে তারা জনপ্রিয় গানগুলো পরিবেশন করে।

বিগত সাত আসরে ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে এই কনসার্ট আয়োজন হলেও এবারই প্রথম ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামে কনসার্টের আয়োজন করা হয়েছে। বর্তমান প্রজন্মকে দেশের ঐতিহাসিক এই দিনের সঙ্গে সংযুক্ত করতে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) তারুণ্যের প্ল্যাটফর্ম ইয়াং বাংলার নিয়মিত আয়োজন জয় বাংলা কনসার্ট।

ইয়াং বাংলার পক্ষ থেকে জানানো হয়, রেজিস্ট্রেশনের আগে থেকেই তরুণেরা আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন কনসার্টটির জন্য। রেজিস্ট্রেশন শুরুর পর আধা ঘণ্টা আগে দৈনিক রেজিস্ট্রেশনের কোটা শেষ হয়ে যাচ্ছিল। কনসার্ট উপলক্ষে ইয়াং বাংলা ও সিআরআইয়ের পেজ থেকে শেয়ার করা বিভিন্ন ব্যান্ড দলের বক্তব্য, প্রোমো ও পোস্টার প্রকাশ করার পর থেকেই তা শেয়ার করে কনসার্টে উপস্থিত হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছেন ভক্তরা।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রতিবারের মতো এবারও জয় বাংলা কনসার্টে নারীদের জন্য বিশেষ একটি প্রবেশপথের ব্যবস্থা করা হয়। সেই সঙ্গে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে যেন তরুণেরা কনসার্টটি নিরাপদভাবে এবং স্বাচ্ছন্দ্যে উপভোগ করতে পারেন, সে জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

কনসার্টের আগের দিন বুধবার প্রস্তুত করা হয় স্টেজ। এরপর শিল্পীরা বিভিন্ন গানের সঙ্গে মূল কনসার্টের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে। এ সময় গানের সঙ্গে সঙ্গে আলোর ঝলকানিতে চোখ ধাঁধিয়ে যায় স্টেডিয়ামে। সেই সঙ্গে গিটার ও ড্রামের শব্দে কেঁপে ওঠে স্টেডিয়াম।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের শ্রেষ্ঠ শত ভাষণের একটি। আর একাত্তরে মুক্তিকামী মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল ‘জয় বাংলা’ স্লোগান।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

৮ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের ভিডিও নিয়ে চিন্তিত সীমা সরকার দেশজুড়ে তোলপাড়!

জয় বাংলা কনসার্ট মাতাচ্ছেন সর্বমোট ৯টি দেশীয় ব্র্যান্ড দল

আপডেট সময় : ০৬:০১:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ মার্চ ২০২৪

জাহাঙ্গীর আলম চট্টগ্রাম:- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ স্মরণে চট্টগ্রামে চলছে জয় বাংলা কনসার্ট। আর বন্দর নগরীর দর্শক শ্রোতাদের ভিন্ন স্বাদের সুর উপহার দিতে মঞ্চে জনপ্রিয় ব্যান্ড মেঘদল। তাদের জনপ্রিয় গান ‘এ হাওয়া’র সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে গাইলেন হাজার হাজার তরুণ।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে বেলা তিনটায় এই কনসার্ট শুরু হয়। কনসার্টে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গান ‘মুক্তির মন্দির সোপান তলে’ গেয়ে শোনায় ব্যান্ডদলটি।

এবারের জয় বাংলা কনসার্ট মাতাচ্ছে সর্বমোট ৯টি দেশীয় ব্র্যান্ড দল। এগুলো হলো- অ্যাভোয়েড রাফা, নেমেসিস, চিরকুট, মেঘদল, লালন, তীরন্দাজ (চট্টগ্রামের ব্যান্ড দল), কার্নিভাল, আর্টসেল এবং ক্রিপটিক ফেইট।

বেলা সাড়ে ৪টার দিকে মঞ্চে উঠে ভিন্ন ধারার সুরের গান পরিবেশন করে মেঘদল। ৩০ মিনিট ধরে তাদের একেকটি গানে কখনও উচ্ছ্বাস, কখনও বেদনার সাগরে ভাসেন দর্শক শ্রোতারা।

মেঘদলের পরে বেলা ৫টা ২০ মিনিটে মঞ্চে উঠবে ব্যান্ড দল অ্যাভোয়েড রাফা। ৩০ মিনিটের পরিবেশনার কথা রয়েছে তাদের।

এরপর একে একে মঞ্চ মাতাবে লালন, ক্রিপটিক ফেইট, নেমেসিস এবং চিরকুট। আর সবশেষ মঞ্চে উঠবে ব্যান্ড আর্টসেল। প্রতিটি ব্যান্ডই প্রায় ৪৫ মিনিট করে গান পরিবেশনা করবে।

এর আগে, বেলা ৩টার দিকে শুরুতেই মঞ্চে ওঠে চট্টগ্রামের ব্যান্ড দল তীরন্দাজ। প্রায় ২৫ মিনিট ধরে তারা জনপ্রিয় একেকটি গান পরিবেশন করতে থাকে। তাদের পরে বেলা ৩:৪০ মিনিটের দিকে মঞ্চে ওঠে ব্যান্ড কার্নিভাল। প্রায় ৩০ মিনিট ধরে তারা জনপ্রিয় গানগুলো পরিবেশন করে।

বিগত সাত আসরে ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে এই কনসার্ট আয়োজন হলেও এবারই প্রথম ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামে কনসার্টের আয়োজন করা হয়েছে। বর্তমান প্রজন্মকে দেশের ঐতিহাসিক এই দিনের সঙ্গে সংযুক্ত করতে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) তারুণ্যের প্ল্যাটফর্ম ইয়াং বাংলার নিয়মিত আয়োজন জয় বাংলা কনসার্ট।

ইয়াং বাংলার পক্ষ থেকে জানানো হয়, রেজিস্ট্রেশনের আগে থেকেই তরুণেরা আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন কনসার্টটির জন্য। রেজিস্ট্রেশন শুরুর পর আধা ঘণ্টা আগে দৈনিক রেজিস্ট্রেশনের কোটা শেষ হয়ে যাচ্ছিল। কনসার্ট উপলক্ষে ইয়াং বাংলা ও সিআরআইয়ের পেজ থেকে শেয়ার করা বিভিন্ন ব্যান্ড দলের বক্তব্য, প্রোমো ও পোস্টার প্রকাশ করার পর থেকেই তা শেয়ার করে কনসার্টে উপস্থিত হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছেন ভক্তরা।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রতিবারের মতো এবারও জয় বাংলা কনসার্টে নারীদের জন্য বিশেষ একটি প্রবেশপথের ব্যবস্থা করা হয়। সেই সঙ্গে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে যেন তরুণেরা কনসার্টটি নিরাপদভাবে এবং স্বাচ্ছন্দ্যে উপভোগ করতে পারেন, সে জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

কনসার্টের আগের দিন বুধবার প্রস্তুত করা হয় স্টেজ। এরপর শিল্পীরা বিভিন্ন গানের সঙ্গে মূল কনসার্টের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে। এ সময় গানের সঙ্গে সঙ্গে আলোর ঝলকানিতে চোখ ধাঁধিয়ে যায় স্টেডিয়ামে। সেই সঙ্গে গিটার ও ড্রামের শব্দে কেঁপে ওঠে স্টেডিয়াম।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের শ্রেষ্ঠ শত ভাষণের একটি। আর একাত্তরে মুক্তিকামী মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল ‘জয় বাংলা’ স্লোগান।