ঢাকা ০২:১৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
প্রতারণার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী ও তার স্বামী রিমান্ডে শাহজালালে যৌথ অভিযানে ২ কেজি ১০৪ গ্রাম স্বর্ণ উদ্ধার, গ্রেফতার ৪ যাত্রী গোসাইরহাট উপজেলা পরিষদের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী জাতীয় যুব কাউন্সিলের সভাপতি:মাসুদ আলম ইয়াংছা উচ্চ বিদ্যালয়ে মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত রামেবিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন যুবলীগ নেতার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী গ্রেফতার! ৪ মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি’কে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে দাগনভূঁঞা থানা পুলিশ দূর্নীতিমুক্ত রিহ‍্যাব গড়তে চান আলিমুল্লাহ খোকন টিলাগাঁও আজিজুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় বারের মত সভাপতি নির্বাচিত শামিম আহমদ ‘কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এর ‘কিশোর গ্যাং-কীভাবে এলো, কীভাবে রুখবো’দুইটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

নিখোঁজ হওয়ার ৪ মাস পর শিশু রাইমুল হাসান’কে মা-বাবার হাতে তুলে দিলেন পিবিআই নারায়ণগঞ্জ

  • মাসুদ রানা
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৬:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ২১৭৮ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বন্দর থানা এলাকার গার্মেন্টস এর সিকিউরিটি গার্ড মোঃ রবিউল ইসলাম (৩৯)নারায়ণগঞ্জ সাধারণ ডায়রীর মাধ্যমে জানায় যে, গত ১৪ ডিসেম্বর ২০২২ ইং তারিখ বিকাল অনুমান ৪.ঘটিকায় বাদীর ছেলে রাইমুল হাসান সাইম (১২) স্থানীয় দোকানে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বের হয়ে যায়। এরপর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও বাদীর ছেলে বাসায় না ফেরায় বাদীসহ তার আত্নীয়-স্বজনরা সম্ভাব্য সকল জায়গায় খোজাঁখুজি করেন। কিন্তু ভিকটিমের কোন খোজঁ না পেয়ে ভিকটিমের বাবা নারায়নগন্জ বন্দর থানায় গত ১৫ অক্টোবর ২২ ইং নিখোঁজ ডায়রী করার আবেদন করেন যার বন্দর থানার সাধারণ ডায়রী করেন।

ভিকটিমের পিতা মোঃ রবিউল ইসলাম উক্ত ডায়রীটি থানায় রুজু করার পরে দীর্ঘ ৩ (তিন) মাস অতিবাহিত হলেও তার ছেলেকে ফিরে না পেয়ে ভিকটিমকে উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম,পুলিশ সুপার পিবিআই নারায়ণগঞ্জ এর শরনাপন্ন হয়।পুলিশ সুপার পিবিআই মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় নারায়ণগঞ্জ সাধারণ ডায়রীটির আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য এস.আই,মোঃ মাজহারুল ইসলাম কে দায়িত্ব প্রদান করেন।

এস.আই,মোঃ মাজহারুল ইসলাম এর সঠিক তত্তাবধানে দায়িত্ব গ্রহন পরপরই তার সংঙ্গীয় এস.আই,শাকিল হোসেন এবং এস.আই,কামরুল হাসান কে নিয়ে ঘটনাস্থলে সরেজমিনে তদন্ত করেন। তদন্তকালে ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ, স্থানীয় লোকদের জিজ্ঞাসাবাদ এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিকটিমের ছবি প্রচারসহ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ভিকটিম নিখোঁজ হওয়ার দীর্ঘ প্রায় ৪ (চার) মাস পর ভিকটিমের অবস্থান সনাক্ত হলে এস.আই (নিঃ) মাজহারুল ইসলাম এবং এস.আই (নিঃ) কামরুল হাসান সহ পিবিআই নারায়ণগঞ্জ জেলার একটি চৌকস টিম তাৎক্ষনিক ভিত্তিতে ডিএমপি, ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানা এলাকার শনির আখড়া, গোবিন্দপুরসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিমকে উদ্ধার করেন। উদ্ধারের পর শিশু ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১২) কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, মোবাইলে গেমস খেলা, কার্টুন দেখাসহ মোবাইল কেন্দ্রিক বিভিন্ন বিষয়ের প্রতি তার তীব্র আকর্ষণ রয়েছে। ভিকটিমের বাবা কাজে যাওয়ার সময় ভিকটিম প্রায়ই তার বাবার মোবাইল বাসায় রেখে গেমস খেলার জন্য বায়না ধরত। ভিকটিমের বাবা ভিকটিমকে মোবাইলে গেমস খেলার জন্য প্রায়ই বকাঝঁকা করত এবং বাসায় মোবাইল রেখে যেত না।

এর ফলে শিশু ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১২) এর মনে প্রচন্ড অভিমানের সৃষ্টি হয় এবং একপর্যায়ে গত ১৪ ডিসেম্বর ২০২২ ইং বিকেলে কাউকে কিছু না বলে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১৩) রাস্তা ঘাট তেমন না চেনায় একপর্যায়ে পায়ে হেটে কাচঁপুর এবং পরবর্তিতে বাসে করে শনির আখড়া এলাকায় এসে পৌছাঁয়। শনির আখড়ার গোবিন্দপুর এলাকায় এসে ভিকটিম স্থানীয় লোকজনকে জানায় তার বাবা-মা মারা গেছেন এবং তাদেও আশ্রয়ে থেকে কখনো হোটেল কখনো মুদি দোকন এবং কখনো ব্যাগের কারখানায় কাজ করে। পরবর্তিতে উক্ত এলাকায় বিভিন্ন লোকের আশ্রয়ে থেকে দীর্ঘ প্রায় ৪( চার) মাস অতিবাহিত করার পর ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১৩) কে সর্বশেষ শনির আখড়ার গোবিন্দপুর এলাকার জনৈক শফিকুল ইসলামের আশ্রয় হতে উদ্ধারপূর্বক তার পিতা মাতার নিকট হস্তান্তর করা হয় পিবিআই নারায়নগন্জ জেলা।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রতারণার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী ও তার স্বামী রিমান্ডে

নিখোঁজ হওয়ার ৪ মাস পর শিশু রাইমুল হাসান’কে মা-বাবার হাতে তুলে দিলেন পিবিআই নারায়ণগঞ্জ

আপডেট সময় : ০৪:৩৬:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বন্দর থানা এলাকার গার্মেন্টস এর সিকিউরিটি গার্ড মোঃ রবিউল ইসলাম (৩৯)নারায়ণগঞ্জ সাধারণ ডায়রীর মাধ্যমে জানায় যে, গত ১৪ ডিসেম্বর ২০২২ ইং তারিখ বিকাল অনুমান ৪.ঘটিকায় বাদীর ছেলে রাইমুল হাসান সাইম (১২) স্থানীয় দোকানে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বের হয়ে যায়। এরপর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও বাদীর ছেলে বাসায় না ফেরায় বাদীসহ তার আত্নীয়-স্বজনরা সম্ভাব্য সকল জায়গায় খোজাঁখুজি করেন। কিন্তু ভিকটিমের কোন খোজঁ না পেয়ে ভিকটিমের বাবা নারায়নগন্জ বন্দর থানায় গত ১৫ অক্টোবর ২২ ইং নিখোঁজ ডায়রী করার আবেদন করেন যার বন্দর থানার সাধারণ ডায়রী করেন।

ভিকটিমের পিতা মোঃ রবিউল ইসলাম উক্ত ডায়রীটি থানায় রুজু করার পরে দীর্ঘ ৩ (তিন) মাস অতিবাহিত হলেও তার ছেলেকে ফিরে না পেয়ে ভিকটিমকে উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম,পুলিশ সুপার পিবিআই নারায়ণগঞ্জ এর শরনাপন্ন হয়।পুলিশ সুপার পিবিআই মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় নারায়ণগঞ্জ সাধারণ ডায়রীটির আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য এস.আই,মোঃ মাজহারুল ইসলাম কে দায়িত্ব প্রদান করেন।

এস.আই,মোঃ মাজহারুল ইসলাম এর সঠিক তত্তাবধানে দায়িত্ব গ্রহন পরপরই তার সংঙ্গীয় এস.আই,শাকিল হোসেন এবং এস.আই,কামরুল হাসান কে নিয়ে ঘটনাস্থলে সরেজমিনে তদন্ত করেন। তদন্তকালে ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ, স্থানীয় লোকদের জিজ্ঞাসাবাদ এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিকটিমের ছবি প্রচারসহ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ভিকটিম নিখোঁজ হওয়ার দীর্ঘ প্রায় ৪ (চার) মাস পর ভিকটিমের অবস্থান সনাক্ত হলে এস.আই (নিঃ) মাজহারুল ইসলাম এবং এস.আই (নিঃ) কামরুল হাসান সহ পিবিআই নারায়ণগঞ্জ জেলার একটি চৌকস টিম তাৎক্ষনিক ভিত্তিতে ডিএমপি, ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানা এলাকার শনির আখড়া, গোবিন্দপুরসহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিমকে উদ্ধার করেন। উদ্ধারের পর শিশু ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১২) কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, মোবাইলে গেমস খেলা, কার্টুন দেখাসহ মোবাইল কেন্দ্রিক বিভিন্ন বিষয়ের প্রতি তার তীব্র আকর্ষণ রয়েছে। ভিকটিমের বাবা কাজে যাওয়ার সময় ভিকটিম প্রায়ই তার বাবার মোবাইল বাসায় রেখে গেমস খেলার জন্য বায়না ধরত। ভিকটিমের বাবা ভিকটিমকে মোবাইলে গেমস খেলার জন্য প্রায়ই বকাঝঁকা করত এবং বাসায় মোবাইল রেখে যেত না।

এর ফলে শিশু ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১২) এর মনে প্রচন্ড অভিমানের সৃষ্টি হয় এবং একপর্যায়ে গত ১৪ ডিসেম্বর ২০২২ ইং বিকেলে কাউকে কিছু না বলে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১৩) রাস্তা ঘাট তেমন না চেনায় একপর্যায়ে পায়ে হেটে কাচঁপুর এবং পরবর্তিতে বাসে করে শনির আখড়া এলাকায় এসে পৌছাঁয়। শনির আখড়ার গোবিন্দপুর এলাকায় এসে ভিকটিম স্থানীয় লোকজনকে জানায় তার বাবা-মা মারা গেছেন এবং তাদেও আশ্রয়ে থেকে কখনো হোটেল কখনো মুদি দোকন এবং কখনো ব্যাগের কারখানায় কাজ করে। পরবর্তিতে উক্ত এলাকায় বিভিন্ন লোকের আশ্রয়ে থেকে দীর্ঘ প্রায় ৪( চার) মাস অতিবাহিত করার পর ভিকটিম রাইমুল হাসান সাইম (১৩) কে সর্বশেষ শনির আখড়ার গোবিন্দপুর এলাকার জনৈক শফিকুল ইসলামের আশ্রয় হতে উদ্ধারপূর্বক তার পিতা মাতার নিকট হস্তান্তর করা হয় পিবিআই নারায়নগন্জ জেলা।