ঢাকা ১২:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
৮ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের ভিডিও নিয়ে চিন্তিত সীমা সরকার দেশজুড়ে তোলপাড়! বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক সোসাইটি জেলা কমিটি অনুমোদন সভাপতি কামরুজ্জামান সম্পাদক বাদশা এটিএন বাংলার চায়ের চুমুকে সংগঠক ও বিনোদন সাংবাদিক আবুল হোসেন মজুমদার ৭ ঘণ্টা অন্ধকারে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের প্রধান কার্যালয় টাটা মটরস বাংলাদেশে উদ্বোধন করলো টাটা যোদ্ধা প্রাইভেট পড়ানোর নামে স্কুল ছাত্রদের সাথে বিকৃত যৌনাচার শিক্ষক’কে গ্রেফতার করেছে: সিআইডি সীতাকুণ্ডে হজ্ব প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন সীতাকুণ্ডে ট্রাকে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, চালক নিহত চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে বাকেরগঞ্জে দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠিত

পা দিয়ে লিখে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেল অদম্য রাব্বি

  • আপডেট সময় : ০৭:৩৭:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪
  • ২১২৭ বার পড়া হয়েছে

 

আবদুল মামুন,সীতাকুণ্ড-

বিদ্যুৎতের তারে জড়িয়ে দুর্ঘটনায় দুই হাত হারিয়ে ফেলেছিল চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের তরুণ রফিকুল ইসলাম রাব্বি। তাই পা দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল।

রবিবার (১২ মে) চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড থেকে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, রফিকুল ইসলাম রাব্বি এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে।সে উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নস্থ হাজী তোবারাক আলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। ভাটিয়ারী ইউনিয়নের বজলুর রহমানের পুত্র রফিকুল ইসলাম রাব্বি ২০১৬ সালের ৫ অক্টোবর পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রাবস্থায় বিদ্যালয় থেকে ভাটিয়ারী বাজারে ফুট ওভারব্রিজের ওপর দিয়ে যাওয়ার সময় বিদ্যুৎতের তারে জড়িয়ে তার দুই হাত হারায়। এরপর অদম্য রফিকুল ইসলাম রাব্বি প্রথমে মুখ দিয়ে ও পরে পা দিয়ে লেখা আয়ত্ত করে। রফিকুল ইসলাম রাব্বি বলেন, আমি শারীরিক প্রতিবন্ধী, তবে মনোবল অটুট ছিল। মানুষের দোয়া ও ভালোবাসায় আমি ভালো ফলাফল করেছি। ভবিষ্যতে শিক্ষক হতে চাই। রফিকুল ইসলাম রাব্বির বাবা বজলুর রহমান বলেন, আল্লাহর কাছে শুকরিয়া। আমার ছেলে কঠোর পরিশ্রম করেছে, জিপিএ-৫ পেয়েছে। ভাটিয়ারী হাজী তোবারক আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কান্তি লাল আচার্য্য বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ার পরও রফিকুল ইসলাম রাব্বি অন্যান্য শিক্ষার্থীদের চেয়ে ভালো ফলাফল করেছে। পা দিয়ে লিখে পরীক্ষা দিয়েছে। বিত্তবানরা যেন তার পড়ালেখায় সহযোগীতা করে, সেটাই প্রত্যাশা। পরীক্ষাকেন্দ্র ফৌজদারহাট খয়রাতি মিঞা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম বলেন, তাকে নিয়ম অনুযায়ী ৩০ মিনিট সময় অতিরিক্ত দেওয়া হয়। কিন্তু বাড়তি সময় সে নেয়নি।যথা সময়ের মধ্যে তার লেখা শেষ হয়ে যায়। তার সমস্যা কাউকে বুঝতে দেয় না। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ নুরুচ্ছফা বলেন, রফিকুল ইসলাম রাব্বিকে সেই পঞ্চম শ্রেণী থেকে আমরা মুখ দিয়ে লিখে পরীক্ষা দিয়ে সাফল্য পেতে দেখেছি। সে পা দিয়ে লিখে মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করেছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

৮ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের ভিডিও নিয়ে চিন্তিত সীমা সরকার দেশজুড়ে তোলপাড়!

পা দিয়ে লিখে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেল অদম্য রাব্বি

আপডেট সময় : ০৭:৩৭:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মে ২০২৪

 

আবদুল মামুন,সীতাকুণ্ড-

বিদ্যুৎতের তারে জড়িয়ে দুর্ঘটনায় দুই হাত হারিয়ে ফেলেছিল চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের তরুণ রফিকুল ইসলাম রাব্বি। তাই পা দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল।

রবিবার (১২ মে) চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড থেকে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, রফিকুল ইসলাম রাব্বি এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে।সে উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নস্থ হাজী তোবারাক আলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। ভাটিয়ারী ইউনিয়নের বজলুর রহমানের পুত্র রফিকুল ইসলাম রাব্বি ২০১৬ সালের ৫ অক্টোবর পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রাবস্থায় বিদ্যালয় থেকে ভাটিয়ারী বাজারে ফুট ওভারব্রিজের ওপর দিয়ে যাওয়ার সময় বিদ্যুৎতের তারে জড়িয়ে তার দুই হাত হারায়। এরপর অদম্য রফিকুল ইসলাম রাব্বি প্রথমে মুখ দিয়ে ও পরে পা দিয়ে লেখা আয়ত্ত করে। রফিকুল ইসলাম রাব্বি বলেন, আমি শারীরিক প্রতিবন্ধী, তবে মনোবল অটুট ছিল। মানুষের দোয়া ও ভালোবাসায় আমি ভালো ফলাফল করেছি। ভবিষ্যতে শিক্ষক হতে চাই। রফিকুল ইসলাম রাব্বির বাবা বজলুর রহমান বলেন, আল্লাহর কাছে শুকরিয়া। আমার ছেলে কঠোর পরিশ্রম করেছে, জিপিএ-৫ পেয়েছে। ভাটিয়ারী হাজী তোবারক আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কান্তি লাল আচার্য্য বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ার পরও রফিকুল ইসলাম রাব্বি অন্যান্য শিক্ষার্থীদের চেয়ে ভালো ফলাফল করেছে। পা দিয়ে লিখে পরীক্ষা দিয়েছে। বিত্তবানরা যেন তার পড়ালেখায় সহযোগীতা করে, সেটাই প্রত্যাশা। পরীক্ষাকেন্দ্র ফৌজদারহাট খয়রাতি মিঞা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম বলেন, তাকে নিয়ম অনুযায়ী ৩০ মিনিট সময় অতিরিক্ত দেওয়া হয়। কিন্তু বাড়তি সময় সে নেয়নি।যথা সময়ের মধ্যে তার লেখা শেষ হয়ে যায়। তার সমস্যা কাউকে বুঝতে দেয় না। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ নুরুচ্ছফা বলেন, রফিকুল ইসলাম রাব্বিকে সেই পঞ্চম শ্রেণী থেকে আমরা মুখ দিয়ে লিখে পরীক্ষা দিয়ে সাফল্য পেতে দেখেছি। সে পা দিয়ে লিখে মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করেছে।