ঢাকা ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বাগেরহাটে সাংবাদিকের শাশুড়ির মৃত্যু বিভিন্ন মহলের শোক নড়াইলের বিভিন্নস্থানে বাৎসরিক মতুয়া মহোৎসব অনুষ্ঠিত শরণখোলায় গলায় ওড়না পেচিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর আত্মহত্যা ৭ কোটির স্ক্র্যাপ ১ কোটিতে, ৬ কোটি টাকার ঘাপলা সুবর্ণচরে পাওয়ার টিলার চাপায় প্রাণ গেলো স্কুল শিক্ষার্থীর বর্ণ সংঘের উদ্যোগে মেধা বৃত্তি পরীক্ষা’২৪ সম্পন্ন বাকেরগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে তিন যুবককে কুপিয়ে আহত মতিঝিল থানার শ্রেষ্ঠ যুবলীগ নেতা ৯ নং ওয়ার্ড সভাপতি হাসান উদ্দিন জামাল হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মোরেলগঞ্জের পোলেরহাট বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, ১৩ দোকান পুড়ে ছাই

প্রেম করে বিয়ে, ডিভোর্স’র নামে মোটা অঙ্কের অর্থ নিতে সাধনার প্রতারণা! চতুর্থ স্বামীর যত অভিযোগ

  • আপডেট সময় : ০৫:৫৭:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪
  • ২০৯৩ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:- প্রেম করে বিয়ের পর স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণা করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী এক ব্যক্তি, যিনি একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তা।

কুলসুম আসাদী মহল সাধনা নামে ওই নারীর চতুর্থ স্বামী দাবিদার ওই ব্যক্তির অভিযোগ, সাধনা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফিনল্যান্ডের নাগরিক। গত বছর প্রেমের সম্পর্কের পর তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের মাসখানেক পরই স্বামীর কাছে সাধনা মোটা অঙ্কের অর্থ দাবি করতে থাকেন।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ভুক্তভোগী স্বামীর দাবি, সাধনা বিয়ের পর তার ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০ লাখ টাকা দিতে চাপ দেন। সংসার টেকাতে বিয়ের দুই মাস পর যৌথ অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ টাকা দেন। এরপর দুই দফায় দেন আরও ১০ লাখ। এখন আবার তাকে মামলার জালেও ফাঁসানো হয়েছে।

থানায় করা এ সংক্রান্ত সাধারণ ডায়েরি ও বিয়ের কাগজপত্র বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সাধনা এর আগেও তিনটি বিয়ে করেছেন। প্রত্যেক স্বামীর কাছ থেকেই মামলা ও প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন টাকা।

জানা গেছে, মাধ্যমিক পাসের পর সাধনার প্রথম বিয়ে হয় সদ্য অবসরে যাওয়া সাবেক এক আমলার সঙ্গে। বিয়ের মাসখানেক পর ভেঙে যায় সেই সংসার। ১৯৯৬ সালে এক সহপাঠীকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। ২০০৬ সালে ভেঙে যাওয়া সেই সংসারে সাধনার দুই সন্তান রয়েছে।

এরপর সাধনা ২০১০ সালে সাবেক এক সেনা কর্মকর্তাকে তৃতীয় বিয়ে করেন। আড়াই বছর টেকা ওই সংসার ভাঙে স্বামীর কাছে টাকা দাবি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলার মধ্য দিয়ে। ওই স্বামীকে কারাগারে পাঠানোর পর মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে মামলা প্রত্যাহার করে।

ভুক্তভোগী সর্বশেষ স্বামীর ভাষ্য, প্রেমের সম্পর্কের পর ১৮৭২ সালের বিশেষ বিবাহ আইনে তিনি সাধনাকে বিয়ে করেন। ৭ মাস টিকে থাকা সেই সংসারে তারা একসঙ্গে ছিলেন গত ১৩ মে পর্যন্ত। এর মধ্যে তিন মাসেরও বেশি সময় সাধনা বিদেশে ছিলেন। গত ১৮ সেপ্টেম্বর স্ত্রীর সাথে বিচ্ছেদের আবেদন করেছেন ওই ব্যক্তি।

ভুক্তভোগী স্বামীর দাবি, বিভিন্ন পুরুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব, গভীর রাত পর্যন্ত আড্ডা, বিভিন্ন ক্লাবে মদ্যপান করাসহ হঠাৎ প্রায়ই নিরুদ্দেশ হয়ে যেতেন সাধনা। এসবের প্রতিবাদ করলেই হুমকি-ধমকি দেওয়া হতো। স্ত্রী সাধনা এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে চারটি মামলা করেছেন।

সাধনার চতুর্থ স্বামীর অভিযোগ, নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনাল আদালতে নির্যাতনের অভিযোগ, যৌতুক আইনে, বিয়ে গোপন করে বিয়ে এবং খোরপোশ দাবিতে তার বিরুদ্ধে এসব মামলা করা হয়েছে। তবে বিশেষ বিবাহ আইনে বিয়ে হওয়ায় খোরপোশের কোনো বিধান নেই।

গত ২৬ জুন ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় ভুয়া ও জাল মেডিকেল সার্টিফিকেট ব্যবহার করেন সাধনা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার জালিয়াতির বিষয় আদালতেও জানিয়েছে।

বর্তমানে ৫১ বছর বয়সী কুলসুম আসাদী মহল সাধনার এসব অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছেন। তার দাবি, তিনিই প্রতারণার শিকার হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

সাধনা আজ রবিবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘আমি যদি অর্থলোভী হই, দুশ্চরিত্রা হই, মানব পাচারকারী হই, দেহ ব্যবসায়ী হই, তাহলে তিনি (চতুর্থ স্বামী) আমাকে ডিভোর্স দেন না কেন? কারণ, ডিভোর্স দিলে তিনি ধরা পড়ে যাবেন, জবাবদিহি করতে হবে। আমার চরিত্র এত ঠুনকো না।’ প্রথম স্ত্রীর মামলা থেকে বাঁচতে তার স্বামী তাকে জড়িয়ে এসব মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে বলেও দাবি সাধনার।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি একটি বিয়ের কথা উল্লেখ্য করেন এবং তার আগের স্বামীর রেখে যাওয়া সন্তানরা দ্বিতীয় স্বামীর বলে উল্লেখ্য করেন। এসময় সাংবাদিকরা তার আগের ৩ টা বিয়ের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সংবাদ সম্মেলনে আমি যা বলবো সেটাই ঠিক।

আদালতে আপনাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মামলা চলছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আদালত পুলিশ, সাংবাদিক, ও অ্যাডভোকেটরা আমাকে ঠকিয়েছে।

এদিকে ভুক্তভোগী একটি অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির গুলশান থানার এসআই (নিরস্ত্র) মো. শাহীন মোল্লা। তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত চলছে।

অন্য একটি অভিযোগের বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকতা এসআই (নিরস্ত্র) ফাইজুল হক গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সাধনা পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। মামলার বিবাদী সাধনা মহল বিদেশের নাগরিক। তার নাম-ঠিকানা-পরিচয় সব কিছু যাচাই করছি। যাচাই-বাছাই শেষে আমরা আইনগত প্রক্রিয়া শেষ করবো।

পুলিশী সূত্র জানায়, সাধানা একজন আসামি আর আসামির কথা না শোনা ঠিক, কারণ আসামিরা মিথ্যা বলে। আইন সবার জন্য সমান। সাধনা বর্তমান যাতে বিয়ে করেছেন তিনি তো অন্য ধর্মের ছিলেন তাহলে তিনি মুসলিত হয়ে ৩ টা বিয়ের পর কেনো ৪র্থ বার বিয়ে করলেন। আইনি ভাবে তিনি ও অনেক ক্ষেত্রে অপরাধী।

এদিকে পুলিশ বলছে, সাধনা আজ সেগুন বাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি সাগর-রুনী মিলনায়তনে নিজের অপরাধ ঢাকতে এক সংবাদ সম্মেলনে মহামান্য হাইকোর্টকে সমালোচনা করে পুলিশ প্রসাশন, সাংবাদিক ও অ্যাডভোকেটদের অপমান করে কথা বলেছেন।সংবাদসম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর নাদিয়ে তড়িঘড়ি করে সাধনা মহল চলে যান।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

বাগেরহাটে সাংবাদিকের শাশুড়ির মৃত্যু বিভিন্ন মহলের শোক

প্রেম করে বিয়ে, ডিভোর্স’র নামে মোটা অঙ্কের অর্থ নিতে সাধনার প্রতারণা! চতুর্থ স্বামীর যত অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৫:৫৭:৫২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:- প্রেম করে বিয়ের পর স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণা করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী এক ব্যক্তি, যিনি একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তা।

কুলসুম আসাদী মহল সাধনা নামে ওই নারীর চতুর্থ স্বামী দাবিদার ওই ব্যক্তির অভিযোগ, সাধনা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফিনল্যান্ডের নাগরিক। গত বছর প্রেমের সম্পর্কের পর তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের মাসখানেক পরই স্বামীর কাছে সাধনা মোটা অঙ্কের অর্থ দাবি করতে থাকেন।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ভুক্তভোগী স্বামীর দাবি, সাধনা বিয়ের পর তার ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০ লাখ টাকা দিতে চাপ দেন। সংসার টেকাতে বিয়ের দুই মাস পর যৌথ অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ টাকা দেন। এরপর দুই দফায় দেন আরও ১০ লাখ। এখন আবার তাকে মামলার জালেও ফাঁসানো হয়েছে।

থানায় করা এ সংক্রান্ত সাধারণ ডায়েরি ও বিয়ের কাগজপত্র বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সাধনা এর আগেও তিনটি বিয়ে করেছেন। প্রত্যেক স্বামীর কাছ থেকেই মামলা ও প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন টাকা।

জানা গেছে, মাধ্যমিক পাসের পর সাধনার প্রথম বিয়ে হয় সদ্য অবসরে যাওয়া সাবেক এক আমলার সঙ্গে। বিয়ের মাসখানেক পর ভেঙে যায় সেই সংসার। ১৯৯৬ সালে এক সহপাঠীকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। ২০০৬ সালে ভেঙে যাওয়া সেই সংসারে সাধনার দুই সন্তান রয়েছে।

এরপর সাধনা ২০১০ সালে সাবেক এক সেনা কর্মকর্তাকে তৃতীয় বিয়ে করেন। আড়াই বছর টেকা ওই সংসার ভাঙে স্বামীর কাছে টাকা দাবি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলার মধ্য দিয়ে। ওই স্বামীকে কারাগারে পাঠানোর পর মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে মামলা প্রত্যাহার করে।

ভুক্তভোগী সর্বশেষ স্বামীর ভাষ্য, প্রেমের সম্পর্কের পর ১৮৭২ সালের বিশেষ বিবাহ আইনে তিনি সাধনাকে বিয়ে করেন। ৭ মাস টিকে থাকা সেই সংসারে তারা একসঙ্গে ছিলেন গত ১৩ মে পর্যন্ত। এর মধ্যে তিন মাসেরও বেশি সময় সাধনা বিদেশে ছিলেন। গত ১৮ সেপ্টেম্বর স্ত্রীর সাথে বিচ্ছেদের আবেদন করেছেন ওই ব্যক্তি।

ভুক্তভোগী স্বামীর দাবি, বিভিন্ন পুরুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব, গভীর রাত পর্যন্ত আড্ডা, বিভিন্ন ক্লাবে মদ্যপান করাসহ হঠাৎ প্রায়ই নিরুদ্দেশ হয়ে যেতেন সাধনা। এসবের প্রতিবাদ করলেই হুমকি-ধমকি দেওয়া হতো। স্ত্রী সাধনা এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে চারটি মামলা করেছেন।

সাধনার চতুর্থ স্বামীর অভিযোগ, নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনাল আদালতে নির্যাতনের অভিযোগ, যৌতুক আইনে, বিয়ে গোপন করে বিয়ে এবং খোরপোশ দাবিতে তার বিরুদ্ধে এসব মামলা করা হয়েছে। তবে বিশেষ বিবাহ আইনে বিয়ে হওয়ায় খোরপোশের কোনো বিধান নেই।

গত ২৬ জুন ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় ভুয়া ও জাল মেডিকেল সার্টিফিকেট ব্যবহার করেন সাধনা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার জালিয়াতির বিষয় আদালতেও জানিয়েছে।

বর্তমানে ৫১ বছর বয়সী কুলসুম আসাদী মহল সাধনার এসব অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছেন। তার দাবি, তিনিই প্রতারণার শিকার হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

সাধনা আজ রবিবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘আমি যদি অর্থলোভী হই, দুশ্চরিত্রা হই, মানব পাচারকারী হই, দেহ ব্যবসায়ী হই, তাহলে তিনি (চতুর্থ স্বামী) আমাকে ডিভোর্স দেন না কেন? কারণ, ডিভোর্স দিলে তিনি ধরা পড়ে যাবেন, জবাবদিহি করতে হবে। আমার চরিত্র এত ঠুনকো না।’ প্রথম স্ত্রীর মামলা থেকে বাঁচতে তার স্বামী তাকে জড়িয়ে এসব মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে বলেও দাবি সাধনার।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি একটি বিয়ের কথা উল্লেখ্য করেন এবং তার আগের স্বামীর রেখে যাওয়া সন্তানরা দ্বিতীয় স্বামীর বলে উল্লেখ্য করেন। এসময় সাংবাদিকরা তার আগের ৩ টা বিয়ের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সংবাদ সম্মেলনে আমি যা বলবো সেটাই ঠিক।

আদালতে আপনাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মামলা চলছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আদালত পুলিশ, সাংবাদিক, ও অ্যাডভোকেটরা আমাকে ঠকিয়েছে।

এদিকে ভুক্তভোগী একটি অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির গুলশান থানার এসআই (নিরস্ত্র) মো. শাহীন মোল্লা। তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত চলছে।

অন্য একটি অভিযোগের বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকতা এসআই (নিরস্ত্র) ফাইজুল হক গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সাধনা পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। মামলার বিবাদী সাধনা মহল বিদেশের নাগরিক। তার নাম-ঠিকানা-পরিচয় সব কিছু যাচাই করছি। যাচাই-বাছাই শেষে আমরা আইনগত প্রক্রিয়া শেষ করবো।

পুলিশী সূত্র জানায়, সাধানা একজন আসামি আর আসামির কথা না শোনা ঠিক, কারণ আসামিরা মিথ্যা বলে। আইন সবার জন্য সমান। সাধনা বর্তমান যাতে বিয়ে করেছেন তিনি তো অন্য ধর্মের ছিলেন তাহলে তিনি মুসলিত হয়ে ৩ টা বিয়ের পর কেনো ৪র্থ বার বিয়ে করলেন। আইনি ভাবে তিনি ও অনেক ক্ষেত্রে অপরাধী।

এদিকে পুলিশ বলছে, সাধনা আজ সেগুন বাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি সাগর-রুনী মিলনায়তনে নিজের অপরাধ ঢাকতে এক সংবাদ সম্মেলনে মহামান্য হাইকোর্টকে সমালোচনা করে পুলিশ প্রসাশন, সাংবাদিক ও অ্যাডভোকেটদের অপমান করে কথা বলেছেন।সংবাদসম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর নাদিয়ে তড়িঘড়ি করে সাধনা মহল চলে যান।