ঢাকা ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
প্রতারণার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী ও তার স্বামী রিমান্ডে শাহজালালে যৌথ অভিযানে ২ কেজি ১০৪ গ্রাম স্বর্ণ উদ্ধার, গ্রেফতার ৪ যাত্রী গোসাইরহাট উপজেলা পরিষদের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী জাতীয় যুব কাউন্সিলের সভাপতি:মাসুদ আলম ইয়াংছা উচ্চ বিদ্যালয়ে মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত রামেবিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন যুবলীগ নেতার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী গ্রেফতার! ৪ মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি’কে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে দাগনভূঁঞা থানা পুলিশ দূর্নীতিমুক্ত রিহ‍্যাব গড়তে চান আলিমুল্লাহ খোকন টিলাগাঁও আজিজুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় বারের মত সভাপতি নির্বাচিত শামিম আহমদ ‘কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এর ‘কিশোর গ্যাং-কীভাবে এলো, কীভাবে রুখবো’দুইটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের ব্লাড সুগার পরীক্ষা,২৫ লাখ টাকা হজম করলেন আরএমও রানা

  • মাসুদ রানা
  • আপডেট সময় : ০৫:৫১:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • ২২১৭ বার পড়া হয়েছে

মোঃ আল মামুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে সরকারি কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়া ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা করা হয়। আর এই পরীক্ষার টাকা গত ৩ বছর ধরে একাই হজম করছেন হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক রানা নুরুস শামস। ফলে সরকার বঞ্চিত হচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে।

হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সূত্রে জানা যায়, গত ৪ বছর যাবত ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে ব্লাড সুগার পরীক্ষা করা হয়। কোন প্রকার রশিদ ছাড়াই ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা করেন হাসপাতালের জরুরী বিভাগের স্টাফ নার্সরা। রশিদ না দিলেও এই পরীক্ষার জন্যে প্রতি রোগী থেকে নেওয়া হয় ৬০ টাকা করে। প্রতিদিন গড়ে ৭০-৮০টি ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা করা হয় ডিজিটাল স্ট্রিপের মাধ্যমে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রায় ৪ বছর আগে হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা চালু করেন। এছাড়াও জরুরী বিভাগে ইসিজি করা হয়। যেন ইসিজি ও ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষার পর রোগীদের সঠিক চিকিৎসা নিশ্চিত করা যায়। সে সময় লভাংশের ওই টাকা দিয়ে কিট ক্রয় ও ইমার্জেন্সি অজ্ঞাত বা অসহায় রোগীদের চিকিৎসা জন্য বাকি টাকা খরচ করা হতো। এই সেবা চালুর পর জরুরী বিভাগের অনেক চিকিৎসকে বিভিন্ন জায়গা বদলী ও পদায়ন করা হয়। এই বদলীর পর জরুরী বিভাগের ব্লাড সুগার পরীক্ষার তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নেন হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক রানা নূরুস শামস্।

সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক হিসেবে রানা নূরুস শামস গত প্রায় ২৬ বছর ধরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আছেন।
গত ৩ বছর যাবত ডা. রানা নূরুস শামস্ জরুরী বিভাগের ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষার টাকা নিজের কাছে জমা রাখেন। তিনি এখন পর্যন্ত ওই টাকার হিসেব হাসপাতালের কাউকে দেননি। এই টাকা কে নিচ্ছে এবং কোথায় জমা হচ্ছে স্বয়ং হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক তা জানেন না। প্রায়ই ৩ বছর যাবত ওই টাকা আত্মসাৎ করে যাচ্ছে ডা. রানা নূরুস শামস্। প্রতিদিন গড়ে ৮০টি ব্লাড সুগার পরীক্ষায় ৬০টাকা করে মোট ২৪০০টাকা আসে। এক মাসে আয় হয় ৭২ হাজার টাকা। গত ৩ বছরে ডাক্তার রানা নূরুস শামস ২৫ লক্ষ ৯২ হাজার টাকা জরুরী বিভাগের ব্লাড সুগার পরীক্ষার জন্যে নিয়েছেন। যার একটি টাকাও সরকারি কোষাগারে জমা দেননি।

সদর হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে সিনিয়র স্টাফ নার্স সাদ্দাম মিয়াকে জিজ্ঞাসা করলে রোগীদের কাছ থেকে ব্লাড সুগার (RBS) টাকা রিসিটের মাধ্যমে নেওয়া হয় কি না? তখন উনি বলেন ডা. রানা স্যার জানেন উনার সাথে কথা বলেন’-এ কথা বলে ফোন কেটে দেন সাদ্দাম মিয়া।

হাসপাতালের হিসাবরক্ষক মুহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, ইমারজেন্সি বিভাগের হাপাতালের টাকা প্রতি মাসে আমার কাছে জমা হয়। রিসিট ছাড়া কোন টাকা আমার কাছে জমা হয় না।

এ বিষয়ে সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. রানা নূরুস শামস্ বলেন, এই টাকা অন্য খাতে ব্যবহার করা হয়। উনি জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করে ফোন কেটে দেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মুহাম্মদ ওয়াহীদুজ্জামান বলেন, ইমারর্জেন্সি বিভাগের ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষার রিসিটের মাধ্যমে নেওয়া হয় কি না জানতে চাইলে উনি বলেন, আমি শুনেছি রোগীদের কাছ থেকে রিসিটের মাধ্যমে টাকা নেওয়া হয় না। আমি জানি হাসপাতালে স্ট্রীপ নেই এ স্ট্রীপ গুলো ডা.রানা দেই এবং স্ট্রীপের টাকা রেখে বাকি টাকাটা হাসপাতালের রাজস্ব তহবিলে জমা দেওয়ার কথা। প্রতি মাসে কত টাকা জমা দিচ্ছে এমন প্রশ্ন করলে? উনি বলেন, আমি তা জানি না accountant (হিসাব রক্ষক) বলতে পারবে। এগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রতারণার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী ও তার স্বামী রিমান্ডে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের ব্লাড সুগার পরীক্ষা,২৫ লাখ টাকা হজম করলেন আরএমও রানা

আপডেট সময় : ০৫:৫১:৩১ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

মোঃ আল মামুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে সরকারি কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়া ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা করা হয়। আর এই পরীক্ষার টাকা গত ৩ বছর ধরে একাই হজম করছেন হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক রানা নুরুস শামস। ফলে সরকার বঞ্চিত হচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে।

হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সূত্রে জানা যায়, গত ৪ বছর যাবত ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে ব্লাড সুগার পরীক্ষা করা হয়। কোন প্রকার রশিদ ছাড়াই ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা করেন হাসপাতালের জরুরী বিভাগের স্টাফ নার্সরা। রশিদ না দিলেও এই পরীক্ষার জন্যে প্রতি রোগী থেকে নেওয়া হয় ৬০ টাকা করে। প্রতিদিন গড়ে ৭০-৮০টি ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা করা হয় ডিজিটাল স্ট্রিপের মাধ্যমে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রায় ৪ বছর আগে হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষা চালু করেন। এছাড়াও জরুরী বিভাগে ইসিজি করা হয়। যেন ইসিজি ও ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষার পর রোগীদের সঠিক চিকিৎসা নিশ্চিত করা যায়। সে সময় লভাংশের ওই টাকা দিয়ে কিট ক্রয় ও ইমার্জেন্সি অজ্ঞাত বা অসহায় রোগীদের চিকিৎসা জন্য বাকি টাকা খরচ করা হতো। এই সেবা চালুর পর জরুরী বিভাগের অনেক চিকিৎসকে বিভিন্ন জায়গা বদলী ও পদায়ন করা হয়। এই বদলীর পর জরুরী বিভাগের ব্লাড সুগার পরীক্ষার তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নেন হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক রানা নূরুস শামস্।

সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক হিসেবে রানা নূরুস শামস গত প্রায় ২৬ বছর ধরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আছেন।
গত ৩ বছর যাবত ডা. রানা নূরুস শামস্ জরুরী বিভাগের ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষার টাকা নিজের কাছে জমা রাখেন। তিনি এখন পর্যন্ত ওই টাকার হিসেব হাসপাতালের কাউকে দেননি। এই টাকা কে নিচ্ছে এবং কোথায় জমা হচ্ছে স্বয়ং হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক তা জানেন না। প্রায়ই ৩ বছর যাবত ওই টাকা আত্মসাৎ করে যাচ্ছে ডা. রানা নূরুস শামস্। প্রতিদিন গড়ে ৮০টি ব্লাড সুগার পরীক্ষায় ৬০টাকা করে মোট ২৪০০টাকা আসে। এক মাসে আয় হয় ৭২ হাজার টাকা। গত ৩ বছরে ডাক্তার রানা নূরুস শামস ২৫ লক্ষ ৯২ হাজার টাকা জরুরী বিভাগের ব্লাড সুগার পরীক্ষার জন্যে নিয়েছেন। যার একটি টাকাও সরকারি কোষাগারে জমা দেননি।

সদর হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে সিনিয়র স্টাফ নার্স সাদ্দাম মিয়াকে জিজ্ঞাসা করলে রোগীদের কাছ থেকে ব্লাড সুগার (RBS) টাকা রিসিটের মাধ্যমে নেওয়া হয় কি না? তখন উনি বলেন ডা. রানা স্যার জানেন উনার সাথে কথা বলেন’-এ কথা বলে ফোন কেটে দেন সাদ্দাম মিয়া।

হাসপাতালের হিসাবরক্ষক মুহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, ইমারজেন্সি বিভাগের হাপাতালের টাকা প্রতি মাসে আমার কাছে জমা হয়। রিসিট ছাড়া কোন টাকা আমার কাছে জমা হয় না।

এ বিষয়ে সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. রানা নূরুস শামস্ বলেন, এই টাকা অন্য খাতে ব্যবহার করা হয়। উনি জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করে ফোন কেটে দেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মুহাম্মদ ওয়াহীদুজ্জামান বলেন, ইমারর্জেন্সি বিভাগের ব্লাড সুগার (RBS) পরীক্ষার রিসিটের মাধ্যমে নেওয়া হয় কি না জানতে চাইলে উনি বলেন, আমি শুনেছি রোগীদের কাছ থেকে রিসিটের মাধ্যমে টাকা নেওয়া হয় না। আমি জানি হাসপাতালে স্ট্রীপ নেই এ স্ট্রীপ গুলো ডা.রানা দেই এবং স্ট্রীপের টাকা রেখে বাকি টাকাটা হাসপাতালের রাজস্ব তহবিলে জমা দেওয়ার কথা। প্রতি মাসে কত টাকা জমা দিচ্ছে এমন প্রশ্ন করলে? উনি বলেন, আমি তা জানি না accountant (হিসাব রক্ষক) বলতে পারবে। এগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে।