ঢাকা ০১:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের ববি শাখার নেতৃত্বে ইব্রাহিম-শান্ত প্রতারণার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী ও তার স্বামী রিমান্ডে শাহজালালে যৌথ অভিযানে ২ কেজি ১০৪ গ্রাম স্বর্ণ উদ্ধার, গ্রেফতার ৪ যাত্রী গোসাইরহাট উপজেলা পরিষদের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী জাতীয় যুব কাউন্সিলের সভাপতি:মাসুদ আলম ইয়াংছা উচ্চ বিদ্যালয়ে মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত রামেবিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন যুবলীগ নেতার মামলায় যুব-মহিলালীগ নেত্রী গ্রেফতার! ৪ মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি’কে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে দাগনভূঁঞা থানা পুলিশ দূর্নীতিমুক্ত রিহ‍্যাব গড়তে চান আলিমুল্লাহ খোকন টিলাগাঁও আজিজুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় বারের মত সভাপতি নির্বাচিত শামিম আহমদ

মোহাম্মদপুরের চিহ্নিত কিশোরগ্যাং”ডায়মন্ড” ও “দে ধাক্কা” গ্রুপের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৩

  • মাসুদ রানা
  • আপডেট সময় : ০১:২০:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • ২০২৪ বার পড়া হয়েছে

 র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব-৩) প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে বিভিন্ন ধরনের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল গোয়েন্দা সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, ঢাকা মহানগরীর মোহাম্মদপুর এলাকায় কতিপয় কিশোরগ্যাং সদস্যরা দীর্ঘদিন যাবৎ মাদক ক্রয়-বিক্রয় ও সেবন, এলাকায় চাঁদাবাজি, ছিনতাই, সাধারণ মানুষকে হয়রানি এবং বিভিন্ন রকম সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে।

এসকল সুনির্দিষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে র‍্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ইং  সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগরীর আদাবর থানাধীন মোহাম্মদিয়া হাউজিং সোসাইটি এলাকায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে কিশোর গ্যাং পরিচালনাকারী চক্রের অন্যতম হোতা মোঃ জুলফিকার আলী (৩৭)এবং তার সহযোগী মোঃ হারুন অর রশিদ (৩৮)মোঃ শামছুদ্দিন বেপারী (৪৮) কৃষ্ণ চন্দ্র দাস (২৮)মোঃ সুরুজ মিয়া (৩৯)’কে ১ টি বিদেশী পিস্তল,১টি ম্যাগাজিন, ২টি চাপাতি ও ৭টি ছুরিসহ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

দুপুরে র‍্যাব-৩ এর প্রধান কার্যালয় টিকাটুলিতে র‍্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের জানান,গ্রেফতারকৃত আসামিরা রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় বেশকিছু কিশোরগ্যাং সক্রিয় রয়েছে।  জুলফিকার তার নেতৃত্বে এবং ধৃত অপর আসামিদের সহযোগিতায় “ডায়মন্ড” এবং “দে ধাক্কা” নামে দুটি কিশোরগ্যাং পরিচালনা করত। এলাকার বেশকিছু বেপরোয়া ও মাদকসেবী কিশোরদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরগ্যাং পরিচালনার মাধ্যমে এলাকায় অস্ত্র, মাদক ব্যবসা, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, অপহরণ, ডাকাতি ও ভুমি দখল সহ বিভিন্ন অপকর্ম করে থাকে।

জুলফিকারের কিশোরগ্যাং পরিচালনা করার জন্য ধৃত হারুন, শামছুদ্দিন বেপারী, কৃষ্ণ চন্দ্র দাস এবং সুরুজ মিয়া সার্বিক সহযোগিতা করে থাকে। জুলফিকার মূলত “ডায়মন্ড” এবং “দে ধাক্কা” গ্রুপের  কিশোরগ্যাংদের নিকট দেশী-বিদেশী পিস্তল ও বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র সরবরাহ করে থাকে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো জানান রাজধানীর মোহাম্মদপুর জুড়ে তাদের ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠা “ডায়মন্ড” এবং “দে ধাক্কা” দুটি কিশোরগ্যাং এর তৎপরতায় প্রতিনিয়ত তারা নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে মহড়া দিয়ে বিরোধী অন্যান্য গ্যাংসমূহের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়তো। খুবই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ধৃত আসামিদের নির্দেশে প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় বিভিন্ন ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে এলাকায় ত্রাসের সৃষ্টি করত।

জুলফিকার তাদের কিশোরগ্যাং পরিচালনা চক্রটির অন্যতম হোতা। ধৃত আসামিদের দ্বারা পরিচালিত কিশোরগ্যাং সদস্যদের গ্রেফতারে র‌্যাবের গোয়েন্দা তৎপরতা চলমান রয়েছে।আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের ববি শাখার নেতৃত্বে ইব্রাহিম-শান্ত

মোহাম্মদপুরের চিহ্নিত কিশোরগ্যাং”ডায়মন্ড” ও “দে ধাক্কা” গ্রুপের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৩

আপডেট সময় : ০১:২০:১৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব-৩) প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে বিভিন্ন ধরনের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় র‍্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল গোয়েন্দা সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, ঢাকা মহানগরীর মোহাম্মদপুর এলাকায় কতিপয় কিশোরগ্যাং সদস্যরা দীর্ঘদিন যাবৎ মাদক ক্রয়-বিক্রয় ও সেবন, এলাকায় চাঁদাবাজি, ছিনতাই, সাধারণ মানুষকে হয়রানি এবং বিভিন্ন রকম সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে।

এসকল সুনির্দিষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে র‍্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ইং  সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগরীর আদাবর থানাধীন মোহাম্মদিয়া হাউজিং সোসাইটি এলাকায় একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে কিশোর গ্যাং পরিচালনাকারী চক্রের অন্যতম হোতা মোঃ জুলফিকার আলী (৩৭)এবং তার সহযোগী মোঃ হারুন অর রশিদ (৩৮)মোঃ শামছুদ্দিন বেপারী (৪৮) কৃষ্ণ চন্দ্র দাস (২৮)মোঃ সুরুজ মিয়া (৩৯)’কে ১ টি বিদেশী পিস্তল,১টি ম্যাগাজিন, ২টি চাপাতি ও ৭টি ছুরিসহ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

দুপুরে র‍্যাব-৩ এর প্রধান কার্যালয় টিকাটুলিতে র‍্যাব-৩ এর অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের জানান,গ্রেফতারকৃত আসামিরা রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় বেশকিছু কিশোরগ্যাং সক্রিয় রয়েছে।  জুলফিকার তার নেতৃত্বে এবং ধৃত অপর আসামিদের সহযোগিতায় “ডায়মন্ড” এবং “দে ধাক্কা” নামে দুটি কিশোরগ্যাং পরিচালনা করত। এলাকার বেশকিছু বেপরোয়া ও মাদকসেবী কিশোরদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরগ্যাং পরিচালনার মাধ্যমে এলাকায় অস্ত্র, মাদক ব্যবসা, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, অপহরণ, ডাকাতি ও ভুমি দখল সহ বিভিন্ন অপকর্ম করে থাকে।

জুলফিকারের কিশোরগ্যাং পরিচালনা করার জন্য ধৃত হারুন, শামছুদ্দিন বেপারী, কৃষ্ণ চন্দ্র দাস এবং সুরুজ মিয়া সার্বিক সহযোগিতা করে থাকে। জুলফিকার মূলত “ডায়মন্ড” এবং “দে ধাক্কা” গ্রুপের  কিশোরগ্যাংদের নিকট দেশী-বিদেশী পিস্তল ও বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র সরবরাহ করে থাকে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো জানান রাজধানীর মোহাম্মদপুর জুড়ে তাদের ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠা “ডায়মন্ড” এবং “দে ধাক্কা” দুটি কিশোরগ্যাং এর তৎপরতায় প্রতিনিয়ত তারা নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে মহড়া দিয়ে বিরোধী অন্যান্য গ্যাংসমূহের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়তো। খুবই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ধৃত আসামিদের নির্দেশে প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় বিভিন্ন ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে এলাকায় ত্রাসের সৃষ্টি করত।

জুলফিকার তাদের কিশোরগ্যাং পরিচালনা চক্রটির অন্যতম হোতা। ধৃত আসামিদের দ্বারা পরিচালিত কিশোরগ্যাং সদস্যদের গ্রেফতারে র‌্যাবের গোয়েন্দা তৎপরতা চলমান রয়েছে।আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।