ঢাকা ০২:২২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বরিশালের দুটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ প্রতীক পেয়েই প্রচারনায় ২১ প্রার্থী! ডিএমপি কোতয়ালী থানার উদ্যোগে পথচারী’দের মাঝে সুপেয় পানি ও স্যালাইন বিতরন ডিএমপি ডেমরা থানার উদ্যোগে পথচারী’দের মাঝে সুপেয় পানি ও স্যালাইন বিতরন গোদাগাড়ী মডেল থানার ওসি আব্দুল মতিন জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত চাঞ্চল্যকর শিশু সুবর্ণা গণধর্ষণসহ হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করল পিবিআই তীব্র গরমে ডিএমপি সবুজবাগ থানার উদ্যোগে পথচারী’দের মাঝে সুপেয় পানি ও স্যালাইন বিতরন ইপিজেড থানা কমিউনিটি পুলিশিং এর উদ্যোগে আইন শৃঙ্খলা ও কিশোর গ্যাং প্রতিরোধ বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত প্রচণ্ড দাবদাহে পথচারীদের মাঝে হাজারীবাগ থানা পুলিশের উদ্দ্যোগে বিশুদ্ধ পানি বিতরন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল বকুল ও চন্দনে ‘গানেরও বন্ধনে’ বাকেরগঞ্জে ১১ কোটি টাকা ব্যায়ে মডেল মসজিদ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ!

সরাকারি ল্যাপটপ টাকার জন্য বন্ধক রাখলেন স্কুলের দপ্তরি!

  • আপডেট সময় : ০৩:৪১:০২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • ২৩৬১ বার পড়া হয়েছে

মো:সাহেদ আহমেদ:-গোসাইরহাট (শরীয়তপুর)প্রতিনিধি।
সরকারি ল্যাপটপ বন্ধক রেখে টাকা ধার নেয়ার অভিযোগ উঠেছে শরীয়তপুর গোসাইরহাট উপজেলার ২৭নং দাতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরির বিরুদ্ধে। স্কুলের দপ্তরী সাকিবুল ঢালী ভুগকাঠী গ্রামের হুমায়ুন বেপারীর কাছে ল্যাপটপটি বন্ধক রাখেন। তবে স্কুলে লেপটপ না দেখায় ঘটনা জানাজানি হয়ে যাওয়ায় পাওনাদার হুমায়ুন বেপারী কে টাকা পরিশোধ করে লেপটপটি উদ্ধার করে স্কুল কতৃপক্ষ।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২৭নং দাতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিভিন্ন অনলাইনের কাজের জন্য সরকার থেকে ২টি ল্যাপটপ দেওয়া হয়েছে। কম্পিউটারের সকল কাজ দপ্তরী সাকিবুল করে থাকে তাই মোট দুইটি ল্যাপটপ তার বাসায় নিয়ে যান। তবে এরমধ্যে একটি এইচপি ব্রান্ডের লেপটপ তিনি বন্ধক রেখে টাকা ধার করেন স্থানীয় একজনের কাছ থেকে। স্কুল কতৃপক্ষ কেউ ল্যাপটপ এর বিষয় অবহিত ছিলেন না। এরই মধ্যে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যায় এইচপি ব্র্যান্ডের ল্যাপটপটি স্থানীয় হুমায়ুন কাছে বন্ধক রাখেন দপ্তরী। হুমায়ুন বেপারী জানান, একটি ব্যাগ সহ লেপটপ নিয়ে আমার কাছে রেখে টাকা ধার চেয়েছে সাকিুল স্কুলের লেপটপ দেখে প্রথমে রাজি হয়নি তারপর অল্প সময়ের ভিতরে টাকা পরিশোধ করে দিবে বলে এইমর্মে অনেক অনুরোধ করলে আমি সাড়ে চার হাজার টাকা সাকিবুলকে দেই এরপরে দুইমাস পর বৃহস্পতিবার স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা টাকা দিয়ে লাপটপটি আমার কাছ থেকে ছাড়িয়ে নেন। অভিযুক্ত দপ্তরী সাকিবুল বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন,আমি আমার ব্যাক্তিগত লেপটপ বন্ধক রেখেছি স্কুলের লেপটপ টা আমার বাসায় ছিলো।
এ বিষয়টি এরিয়ে প্রধান শিক্ষিকা নাসরিন সুলতানা বলেন, , ‘সব মিটমাট হয়ে গেছে।ল্যাপটপ দপ্তরী সাকিবুলের কাছেই থাকতো তার থেকে ফেরত নিয়ে স্কুলে রাখা হয়েছে।’
গোসাইরহাট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা লূৎফর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই।খুঁজখবর নিয়ে বলতে পারবো।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

বরিশালের দুটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ প্রতীক পেয়েই প্রচারনায় ২১ প্রার্থী!

সরাকারি ল্যাপটপ টাকার জন্য বন্ধক রাখলেন স্কুলের দপ্তরি!

আপডেট সময় : ০৩:৪১:০২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মো:সাহেদ আহমেদ:-গোসাইরহাট (শরীয়তপুর)প্রতিনিধি।
সরকারি ল্যাপটপ বন্ধক রেখে টাকা ধার নেয়ার অভিযোগ উঠেছে শরীয়তপুর গোসাইরহাট উপজেলার ২৭নং দাতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরির বিরুদ্ধে। স্কুলের দপ্তরী সাকিবুল ঢালী ভুগকাঠী গ্রামের হুমায়ুন বেপারীর কাছে ল্যাপটপটি বন্ধক রাখেন। তবে স্কুলে লেপটপ না দেখায় ঘটনা জানাজানি হয়ে যাওয়ায় পাওনাদার হুমায়ুন বেপারী কে টাকা পরিশোধ করে লেপটপটি উদ্ধার করে স্কুল কতৃপক্ষ।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২৭নং দাতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিভিন্ন অনলাইনের কাজের জন্য সরকার থেকে ২টি ল্যাপটপ দেওয়া হয়েছে। কম্পিউটারের সকল কাজ দপ্তরী সাকিবুল করে থাকে তাই মোট দুইটি ল্যাপটপ তার বাসায় নিয়ে যান। তবে এরমধ্যে একটি এইচপি ব্রান্ডের লেপটপ তিনি বন্ধক রেখে টাকা ধার করেন স্থানীয় একজনের কাছ থেকে। স্কুল কতৃপক্ষ কেউ ল্যাপটপ এর বিষয় অবহিত ছিলেন না। এরই মধ্যে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যায় এইচপি ব্র্যান্ডের ল্যাপটপটি স্থানীয় হুমায়ুন কাছে বন্ধক রাখেন দপ্তরী। হুমায়ুন বেপারী জানান, একটি ব্যাগ সহ লেপটপ নিয়ে আমার কাছে রেখে টাকা ধার চেয়েছে সাকিুল স্কুলের লেপটপ দেখে প্রথমে রাজি হয়নি তারপর অল্প সময়ের ভিতরে টাকা পরিশোধ করে দিবে বলে এইমর্মে অনেক অনুরোধ করলে আমি সাড়ে চার হাজার টাকা সাকিবুলকে দেই এরপরে দুইমাস পর বৃহস্পতিবার স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা টাকা দিয়ে লাপটপটি আমার কাছ থেকে ছাড়িয়ে নেন। অভিযুক্ত দপ্তরী সাকিবুল বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন,আমি আমার ব্যাক্তিগত লেপটপ বন্ধক রেখেছি স্কুলের লেপটপ টা আমার বাসায় ছিলো।
এ বিষয়টি এরিয়ে প্রধান শিক্ষিকা নাসরিন সুলতানা বলেন, , ‘সব মিটমাট হয়ে গেছে।ল্যাপটপ দপ্তরী সাকিবুলের কাছেই থাকতো তার থেকে ফেরত নিয়ে স্কুলে রাখা হয়েছে।’
গোসাইরহাট উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা লূৎফর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই।খুঁজখবর নিয়ে বলতে পারবো।